সয়াবিনের কালকান্ড পচা রোগ

  • লক্ষণ

  • ট্রিগার

  • জৈবিক নিয়ন্ত্রণ

  • রাসায়নিক নিয়ন্ত্রণ

  • প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা

সয়াবিনের কালকান্ড পচা রোগ

Macrophomina phaseolina

ছত্রাক


সংক্ষেপে

  • ফুল হওয়ার সময়কালে গরম ও শুষ্ক আবহাওয়ায় লক্ষণ প্রকাশ পায়.
  • দিনের খুব গরমের সময়টাতে স্বল্পতেজী উদ্ভিদ নেতিয়ে পড়ে.
  • কচি পাতাগুলো হলুদ হয় এবং ফল অপূর্ণ থাকে.
  • মূলে এবং কান্ডের আন্তঃকোষ কলায় লালচে বাদামী বর্ণের ধূসর বিবর্ণতা দেখা দেয় ।.

আবাস:

সয়াবিন

লক্ষণ

ফসল বৃদ্ধির যেকোনো সময়ে রোগের প্রকোপ দেখা দিতে পারে কিন্তু ফুল ধরার সময় চারাগাছ বেশি আক্রমনপ্রবণ হয়ে থাকে । শুষ্ক ও গরম আবহাওয়ার বেশি সময়টাতে এ লক্ষণ প্রকাশ পায় । দিনের খুব গরমের সময়টাতে স্বল্পতেজী উদ্ভিদ নেতিয়ে পড়ে, রাতের সময়টাতে নেতিয়ে আংশিকভাবে পুনরুদ্ধার করতে পারে । কচি পাতাগুলো হলুদ হয় এবং ফল অপূর্ণ থাকে । মূলে পচন ধরে এবং কান্ডের আন্তঃকোষ কলায় লালচে বাদামী বর্ণের ধূসর বিবর্ণতা দেখা দেয় । ছত্রাক বৃদ্ধির আরেকটি লক্ষণ হলো অনিয়মিতভাবে কান্ডের গোড়ায় কালো বর্ণের দাগ ছড়িয়ে পড়া ।

ট্রিগার

এ রোগটি ম্যাক্রোফোমিনা ফ্যাসেওলিনা ছত্রাকের দ্বারা হয়ে থাকে । বাহক ফসলের অবশিষ্টাংশে বা মাটিতে এ ছত্রাক বেঁচে থাকতে পারে এবং মৌসুমের শুরুতে মূলের মাধ্যমে উদ্ভিদ সংক্রমিত হয় । বিরূপ পরিবেশগত কারণ যেমন (গরম ও শুষ্ক আবহাওয়ার সময় ) রোগের লক্ষন আরো প্রকট হয়। এ ক্ষতির ফলে মূলের আন্তঃকোষকলায় জল উত্তোলনে বাধা পায় যখন উদ্ভিদের জলের খুব বেশি দরকার হয়। অন্য ছত্রাকের তুলনায়, কয়লা খড়ের ছত্রাকের কার্যকলাপ এবং বৃদ্ধি শুষ্ক মৃত্তিকা (২৭ থেকে ৩৫ ডিগ্রী সেন্টিগ্রেড) দ্বারা অনুকূলিত হয়।

জৈবিক নিয়ন্ত্রণ

আপনি পরজীবী ট্রিকোডার্মা ছত্রাক ব্যবহার করার চেষ্টা করতে পারেন। এটি অন্য ছত্রাককে পরজীবায়ন করে, তাদের মধ্যে ম্যাক্রোফোমিনা ফ্যাসেওলিনা অথবা ব্যাকটেরিয়া রাইজোবিয়াম sp ছত্রাক নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যবহার করুন।

রাসায়নিক নিয়ন্ত্রণ

সম্ভবমতো সমন্বিত বালাই ব্যবস্থাপনার আওতায় জৈবিক নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে সর্বদা প্রতিরোধের ব্যবস্থা নিন। কোনও ছত্রাকনাশক বীজ বা পাতার স্প্রে কালকান্ড পচা রোগের নিয়ন্ত্রণ প্রদান করে না।

প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা

  • সহজলভ্য হলে, সহনশীল জাত চাষ করুন.
  • অতিরিক্ত বীজ ব্যবহার এড়িয়ে চলুন.
  • শুষ্ক ও গরম আবহাওয়ার সময়ে নিয়মিতভাবে জমিতে চাষ দিন.
  • আক্রমণের প্রকোপ কম হলে চাষ দেয়া থেকে বিরত থাকুন.
  • আবহাওয়ার বৈচিত্র্যের উপর ভিত্তি করে আগাম জাতের অথবা নাবি জাতের চারা ব্যবহার করুন.
  • অ-পোষক ফসল যেমন গমের সাথে ফসলচক্র করুন ।.